শীর্ষ সংবাদ- জাতীয় সংবাদ

নোয়াখালীতে হিজবুত তাওহীদের সঙ্গে গ্রামবাসীর সংঘর্ষে নিহত ২

14-03-2016 | bdcurrentnews

নোয়াখালীর সোনাইমুড়ি উপজেলার চাষিরহাট বাজার ও পোরকরা গ্রামে হুমায়ুন খান পন্নীর সংগঠন হিজবুত তাওহীদ কর্মীদের সঙ্গে গ্রামবাসীর সংঘর্ষে দু’জন নিহত হয়েছেন। নিহতরা হলেন— জহিরুল ইসলাম (৪২) ও অজ্ঞাতনামা (৩৫)। তারা দু’জনই হিজবুত তাওহীদ কর্মী বলে জানা গেছে। গতকাল সোমবার দুপুর ১২টার দিকে সংঘর্ষ শুরু হয়ে বিকেল ৪টা পর্যন্ত চলে। এ সময় হামলা, ভাঙচুর ও ১৫টি বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করা হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে গুলি চালিয়েছে পুলিশ। এ ঘটনায় অর্ধশতাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছেন। এ সংঘর্ষের পর থেকেই এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। নাশকতা রোধে দাঙ্গা পুলিশের পাশাপাশি ওই গ্রামে র্যাব ও বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, হিজবুত তাওহীদের কার্যক্রম বন্ধের দাবিতে চাষিরহাট বাজার ব্যবসায়ী ও এলাকাবাসী গতকাল ১০টার দিকে সোনাইমুড়ি উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত আবেদন করেন। এ খবর পেয়ে হিজবুত তাওহীদের কর্মীরা ক্ষিপ্ত হয়ে দুপুর ১২টার দিকে চাষিরহাট বাজারের দোকানপাটে ব্যাপক ভাঙচুর চালায় এবং ২-৩টি বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়। এ নিয়ে এলাকাবাসী ও হিজবুত তাওহীদ কর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। টানা চার ঘণ্টার এ সংঘর্ষে দু’জন নিহত ও অর্ধশতাধিক ব্যক্তি আহত হন। খবর পেয়ে নোয়াখালী পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে হিজবুত তাওহীদের কর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে বেশ কয়েক রাউন্ড গুলি ছুড়েছে পুলিশ। এক পর্যায়ে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী হিজবুত তাওহীদের নেতাকর্মীদের ১০-১২টি বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করে। স্থানীয় মুসল্লিদের অভিযোগ, হিজবুত তাওহীদের কর্মীরা এলাকায় ইসলামবিরোধী নানা কর্মকাণ্ড চালিয়ে আসছেন। দুই বছর আগে স্থানীয় লোকজনের বাধার মুখে তারা এলাকা ছাড়ে। গত ২৪ ফেব্রুয়ারি চাষিরহাটে এক সমাবেশ করে তারা উসকানিমূলক বক্তব্য দেয়। এতে লোকজন আরো ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে। গত কয়েক দিন ধরে সংগঠনের বহিরাগতদের এলাকায় আনাগোনা বেড়ে যায়। এ বিষয়ে সোনাইমুড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দায়িত্বে থাকা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) নিকারুজ্জামান গতকাল স্থানীয়দের অভিযোগ পাওয়া ও সংঘর্ষের বিষয়টি নিশ্চিত করেন এবং র্যাব ও বিজিবি মোতায়নের কথা জানান।

সকল সংবাদ -জাতীয় সংবাদ