শীর্ষ সংবাদ - রাজনীতি

পিরোজপুর ও কক্সবাজারে ২১০০ জনের বিরুদ্ধে মামলা

24-03-2016 | bdcurrentnews

ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনপরবর্তী সহিংসতায় দেশের বিভিন্ন স্থানে গতকাল বৃহস্পতিবারও হামলা ভাঙচুর ও সংঘর্ষে পুলিশ কর্মকর্তা, ইউপি সদস্য, শিশু-নারীসহ দেড় শতাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে গুলি ছুড়েছে পুলিশ। সহিংসতায় আহত একজন মারা গেছেন। এছাড়া সরকারি কাজে বাধা দেয়ার অভিযোগে পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় এবং কক্সবাজারের টেকনাফে ২১০০ ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে পুলিশ ও প্রশাসন। গতকাল বৃহস্পতিবার ও গত বুধবার রাতে এসব ঘটনা সংঘটিত হয়। এছাড়া পটুয়াখালীর দশমিনার বহরমপুর ইউনিয়নের আদমপুর বাজারে ইউপি নির্বাচনের আগের রাতে (গত সোমবার) সহিংসতায় আহত শাহজাহান (৪৩) গতকাল সকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান। এছাড়া গত বুধবার গভীর রাতে পটুয়াখালীর দশমিনা উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক নাসির উদ্দিন পালোয়ানকে পুলিশের ওপর হামলা মামলায় গ্রেফতার করা হয়েছে। বরিশালের আগৈলঝাড়ায় নির্বাচনপরবর্তী সহিংসতায় অন্তত ৩০ জন, পিরোজপুরে ৫০ জন, বাগেরহাটের শরণখোলায় অর্ধশতাধিক ও গৌরনদীতে ১৫ জন আহত হয়েছেন। একই দিনে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় নির্বাচন অফিস ভাঙচুর করেছেন ক্ষমতাসীন দল মনোনীত পরাজিত চেয়ারম্যান প্রার্থীর সমর্থকরা। এ সময় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও ইট পাটকেল নিক্ষেপে ওসিসহ ৬ পুলিশ সদস্য আহত হন। একপর্যায়ে রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে পুলিশ। অন্যদিকে ঝালকাঠির কাঁঠালিয়া উপজেলার আমুয়া ইউনিয়নের ছোনাউড়া গ্রামে নির্বাচনী সহিংসতার মামলায় গ্রেফতারকৃত ২৬ জন জামিন পেয়েছেন। একই মামলায় দু’জনের জামিন নামঞ্জুর করে জেলহাজতে পাঠিয়েছে আদালত। আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরÑ পিরোজপুর: পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলার ইউপি নির্বাচনে সাফা ডিগ্রি কলেজ কেন্দ্রে ব্যালট বাক্স ছিনতাইয়ের চেষ্টা, সরকারি কজে বাধা ও গাড়ি ভাঙচুরের ঘটনায় অজ্ঞাত ১৩০০ ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা করেছে পুলিশ। গত বুধবার রাতে ওই কেন্দ্রে দায়িত্ব থাকা বান্দরবান পার্বত্য জেলা পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) ছানোয়ার আলী খান বাদী হয়ে মামলাটি করেন। মামলায় অভিযোগ করা হয়, গত ২২ মার্চ অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে সাফা ডিগ্রি কলেজ কেন্দ্রে ভোট গণনা শেষে ফল ঘোষণাকে কেন্দ্র করে দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের অবরুদ্ধ করে ব্যালট বাক্স ছিনতাইয়ের চেষ্টা, সরকারি কাজে বাধা ও সরকারি গাড়ি ভাঙচুর করেন ১২০০-১৩০০ ব্যক্তি। এ সময় সরকারি সম্পত্তি ও আত্মরক্ষার্থে বিজিবি গুলি ছুড়লে ৫ জন নিহত হন। গত বুধবার বিকেলে ময়নাতদন্ত শেষে তাদের মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। সন্ধ্যায় তুষখালী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মাঠে নামাজে জানাজা শেষে তাদের দাফন সম্পন্ন হয়। পিরোজপুরের পুলিশ সুপার মো. ওয়ালিদ হোসেন জানান, এ ঘটনা তদন্তে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু আশ্রাফের নেতৃত্বে ৩ সদস্যের একটি কমিটি করা হয়েছে। এছাড়া অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. মানিক হার রহমানকে প্রধান করে আরেকটি তদন্ত কমিটি করা হয়েছে। ৭ দিনের মধ্যে কমিটিকে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। এদিকে জেলার কাউখালীতে নির্বাচনপরবর্তী সহিসংতায় প্রায় ৫০ জন আহত হয়েছেন। এর মধ্যে উপজেলার ফলইবুনিয়া গ্রামের বিজয়ী মেম্বার মহসিন খান দুলুর সমর্থক সুমন হোসেনকে (৩২) প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আবুল বাশারের সমর্থকরা গত বুধবার রাতে গরম পানি ঢেলে সমস্ত শরীর ঝলসে দিয়েছেন। এছাড়া শিয়ালকাঠী ১, ২ ও ৩নং ওয়ার্ডে সংরক্ষিত মহিলা আসনের প্রার্থী জেসমিন আক্তারের সমর্থকরা প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ফারজানা ইয়াসমিনের সমর্থক জাফর আলী খান (৪৫)কে কুপিয়ে জখম করে। এরআগে দুপুরে ১নং সয়নারঘুনাথপুর ইউনিয়নের জাতীয় পার্টি (জেপি) সমর্থিত সাইকেল প্রার্থী ও আওয়ামী লীগের প্রার্থীর লোকজনের মধ্যে নির্বাচনী সহিংসতায় উভয় পক্ষের অন্তত ৫০ জন আহত হন। এর মধ্যে দীপু খন্দকার নামে কাউখালী উপজেলার এক যুবলীগ কর্মীর হাতের কব্জি প্রায় আলাদা হয়ে গেছে। দীপু খন্দকারকে বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। শরণখোলা (বাগেরহাট): বাগেরহাটের শরণখোলায় হামলা ভাঙচুর এবং সংঘর্ষে শিশু ও নারীসহ অর্ধশতাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছেন। এসব সংঘর্ষে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ বেশ কয়েকটি বাড়ি-ঘরে ভাঙচুর চালানো হয়েছে। আহতদের মধ্যে খোন্তাকাটা ইউনিয়নের ৭ নম্বর রাজৈর ওয়ার্ডে ইউপি সদস্য মো. আ. রহিমকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। শরণখোলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৪৫ জন। নির্বাচনের রাত থেকে গতকাল সন্ধ্যা পর্যন্ত উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় এসব সহিংসতা সংঘটিত হয়। কক্সবাজার: কক্সবাজারের টেকনাফের সাবরাং ইউপি নির্বাচনের ফল ঘোষণাকে কেন্দ্র করে পৃথক সংঘর্ষে ২ জন নিহত হওয়ার পর ওই ঘটনায় ৮০০ জনকে আসামি করে মামলা করা হয়েছে। শাহপরীর দ্বীপ মাঝেরপাড়া কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার নুরুল বশর বাদী হয়ে গতকাল দুপুরে টেকনাফ থানায় এ মামলা দায়ের করেন। মামলায় নিহত দুই জনকেই প্রধান আসামি করা হয়েছে। এজাহারে ৫ জনের নাম উল্লেখ করলেও অন্যদের অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে। অভিযুক্তরা হলেনÑ ঘটনায় নিহত সাবরাং মুন্ডারডেইল এলাকার আমির হামজার পুত্র এবং আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী চেয়ারম্যান প্রার্থী নূর হোসাইনের ভাই আবদুল গফুর (৩৮), একই এলাকার আবদুস সালামের পুত্র নিহত মনির আহমেদ (২৮), নিহত মনিরের মা রেহেনা বেগম (৪৮), তার কন্যা শাহেনা আকতার (২৫), মৃত আলী আহমদের স্ত্রী রশিদা বেগম (৫৫)। টেকনাফ থানার ওসি আবদুল মজিদ মামলা দায়েরের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, কেন্দ্র থেকে ফেরার পথে ব্যালট বক্স ছিনতাই, সরকারি কাজে বাধা দেয়ার অভিযোগে এ মামলা দায়ের করা হয়।

সকল সংবাদ -রাজনীতি